• মাধুকর প্রতিনিধি
  • তারিখঃ ২১-৫-২০২৩, সময়ঃ সকাল ০৯:৫৩
  • ৪৭ বার দেখা হয়েছে

৯ মাস পর বাংলাদেশি যুবকের মরদেহ ফেরত দিলো বিএসএফ

৯ মাস পর বাংলাদেশি যুবকের মরদেহ ফেরত দিলো বিএসএফ

পঞ্চগড় প্রতিনিধি ►

পঞ্চগড়ের ভারতীয় সীমান্তের অভ্যন্তরে গরু চুরির অভিযোগে পিটিয়ে হত্যার প্রায় ৯ মাস পর বাংলাদেশি যুবকের মরদেহ ফেরত দিয়েছে ভারতীয় সীমান্তরী বাহিনী বিএসএফ। শনিবার সন্ধ্যার দিকে জেলার তেঁতুলিয়া উপজেলার বাংলাবান্ধা সীমান্তে তার মরদেহ গ্রহণ করে স্বজনরা।

নিহতের পরিবার ও সীমান্ত সূত্র জানায়, গত বছরের ২৪ আগষ্ট ভোরে নীলফামারী-৫৬ বিজিবি ব্যাটালিয়নের আওতাধীন পঞ্চগড় উপজেলা সদরের অমরখানা সীমান্তের বিপরীত ভারতের বড়ুয়াপাড়া সীমান্ত এলাকায় বাংলাদেশি যুবক আব্দুস সালামসহ তিন যুবককে ধাওয়া দেন স্থানীয়রা। এ সময় অন্য দুই জন পালিয়ে গেলেও আব্দুস সালামকে গরুচোর সন্দেহে পিটিয়ে হত্যা করে ভারতের নাগরিকরা। পরে ভারতীয় সীমান্তরী বাহিনী (বিএসএফ) ও ভারতীয় পুলিশ বাংলাদেশি ওই যুবকের মরদেহ উদ্ধার করে। নিহত আব্দুস সালামের বাড়ি উপজেলা সদরের সাতমেরা ইউনিয়নের কাহার পাড়ায়। ঘটনাটি ভারতীয় বিভিন্ন মিডিয়া প্রচার হলে নিহতের পরিবার বিষয়টি জানতে পারেন এবং মরদেহ ফেরতের জন্য বিজিবির মাধ্যমে ভারতের কাছে আবেদন করে। দুই দেশের আইনি জটিলতা এবং দীর্ঘ প্রক্রিয়া শেষে শনিবার সন্ধ্যায় মরদেহ ফেরত দেয় বিএসএফ।

নিহত সালামের বড়ভাই আলিম হোসেন বলেন, ‘আমার ভাইয়ের কোনো খোঁজ না পেয়ে পরে জানতে পারি তাকে গরুচোর সন্দেহে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। দীর্ঘ ৯ মাস ধরে আমার ভাইয়ের লাশ ফেরতের জন্য বিজিবিসহ বিভিন্ন দপ্তরে ঘুরে ফিরেছি। দীর্ঘদিন পর হলেও স্থানীয় প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্টদেও সহায়তায় লাশ ফেরত পাওয়া গেছে।’

এ নিয়ে বিজিব এবং বিএসফের সংশ্লিষ্ট কেউ কোনো কথা বলেনি। একাধিকবার তাদের মোবাইল ফোনে কল করা হলেও ফোন রিসিভড করেননি। তবে সাতমেড়া ইউপি চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম রবি বলেন, ‘ভারতে গরু আনতে গিয়ে স্থানীয় সালাম নামে একজন মারা গেছেন বলে জানা যায় তখন। মরদেহটি ভারতের একটি হাসপাতালে বিশেষ ব্যবস্থায় রাখা ছিল। এরপর নিহত সালামের এক ভাই ভিসা পাসপোর্টের মাধ্যমে ভারতে গিয়ে মরদেহ শনাক্ত করেন। দীর্ঘ ৯ মাস পর আইনি প্রক্রিয়া শেষে পরিবারের সদস্যদের কাছে মরদেহটি হস্তান্তর করে বিএসএফ ও ভারতীয় পুলিশ। তবে মরদেহ আনার খরচ সালামের পরিবারের প থেকেই বহন করা হয়েছে।’

সদর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল লতিফ মিঞা বলেন, ‘দীর্ঘ প্রায় ৯ মাস পর নিখোঁজ আব্দুস সালামের মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করেছে বিএসএফ। এ সময় স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ পুলিশ উপস্থিত ছিল।’

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়