• মাধুকর প্রতিনিধি
  • তারিখঃ ১৮-২-২০২৩, সময়ঃ দুপুর ০২:২৭
  • ১৯৪ বার দেখা হয়েছে

ভাষা-সংস্কৃতি সংরক্ষণ ও বিকাশের দাবিতে  শোভাযাত্রা ও সাংস্কৃতিক সমাবেশ

ভাষা-সংস্কৃতি সংরক্ষণ ও বিকাশের দাবিতে  শোভাযাত্রা ও সাংস্কৃতিক সমাবেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক ►

সাঁওতালসহ বিভিন্ন জনগোষ্ঠীর ভাষা-সংস্কৃতি সংরক্ষণ ও বিকাশের দাবিতে শনিবার সকালে ব্যানার, ফেস্টুন নিয়ে শোভাযাত্রা ও দুই ঘণ্টাব্যাপী সাংস্কৃতিক সমাবেশ অনুষ্ঠান করেছে সাঁওতাল সম্প্রদায়ের যুবারা। 

গাইবান্ধা ডিবি রোড গানাসাস মার্কেটের সামনে নাগরিক সংগঠন জনউদ্যোগ ও বেসরকারি সংগঠন অবলম্বনের সহযোগিতায় এ কর্মসূচির আয়োজিত হয়। শতাধিক আদিবাসী তাদের ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরে এ কর্মসূচিতে অংশ নেয়।

জন উদ্যোগের সদস্য সচিব প্রবীর চক্রবর্তীর সভাপতিত্বে মানববন্ধন কর্মসূচি চলাকালে বক্তব্য রাখেন, শিক্ষাবিদ অধ্যাপক মাজহার উল মান্নান, জেলা বারের সধারণ সম্পাদক ও আদিবাসী বাঙালি সংহতি পরিষদের আহবায়ক অ্যাড. সিরাজুল ইসলাম বাবু, সাহেবগঞ্জ বাগদাফার্ম ভূমি উদ্ধার সংগ্রাম কমিটির সভাপতি ফিলিমন বাস্কে, আদিবাসী নেত্রী প্রিসিলা মুরমু, আদিবাসী বাঙালি সংহতি পরিষদের সদর উপজেলার আহবায়ক গোলাম রব্বানী মুসা, সচেতন নাগরিক কমিটির সহ-সভাপতি অশোক সাহা, ছাত্র নেতা উম্মে নিলুফার তিন্নি, সামাজিক সংগ্রাম পরিষদের সদস্য সচিব হাসান মোর্শেদ দীপন, জেলা রবিদাস ফোরামের সাধারণ সম্পাদক খিলন রবিদাস, আদিবাসী ইয়ুথ ফোরামের নেতা মেরিজান মুরমু, শিবানী পাহাড়ী, সোনালী মার্ডি প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, স্বাধীনতার এতো বছর পরেও বাংলাদেশে আদিবাসীদের নিজ মাতৃভাষায় শিক্ষা লাভের দাবি উপেক্ষিত হয়ে আসছে। বর্তমানে দেশের ৫০টির মতো আদিবাসী গোষ্ঠীর শিশু বংশ পরম্পরায় ভুলতে বসেছে তাদের নিজস্ব ভাষাগত ঐতিহ্য, লোকগাথা, প্রবাদ-প্রবচন ইত্যাদি। আদিবাসী শিশুদের নিজ মাতৃভাষায় অক্ষরজ্ঞান না থাকায় তাদের সংস্কৃতিও হচ্ছে ক্ষতিগ্রস্ত। একটি শিশুর স্বকীয়তা, সৃজনশীলতা, মননশীলতা ও মেধার বিকাশ হয় তার মাতৃভাষার মধ্য দিয়ে। তাই আদিবাসী শিশুদের এ দেশে সাধারণভাবে শিক্ষা-দীক্ষায় পিছিয়ে থাকা হতদরিদ্র আদিবাসী গোষ্ঠীর প্রত্যেকেরই নিজস্ব ভাষা ও নিজ ভাষার বর্ণলিপি শিক্ষার গুরুত্ব অপরিসীম। কিন্তু চর্চার অভাবে এসব বর্ণমালার সবই এখন বিলুপ্তপ্রায়। ফলে নতুন প্রজন্মের আদিবাসীরা নিজ ভাষায় কথা বলতে পারলেও নিজস্ব ভাষায় তারা একেবারে নিরক্ষর।

বক্তরা আরও বলেন, গাইবান্ধাসহ আদিবাসীদের নিজস্ব ভাষা ও সংস্কৃতি রক্ষায় অবিলম্বে আদিবাসীদের জন্য পাঠ্যপুস্তক, গাইবান্ধা জেলায় আদিবাসী কালচারাল একাডেমি প্রতিষ্ঠাসহ তাদের ভাষা ও সংস্কৃতিকে রক্ষায় সরকারি উদ্যোগ নেয়ার দাবী জানান। বুকের রক্ত দিয়ে এ দেশ ভাষার মর্যাদা প্রতিষ্ঠা করে সারাবিশ্বে উদাহরণ সৃষ্টি করেছে। অথচ এ দেশেই ভাষাগত সংখ্যালঘু জাতিগুলোর মাতৃভাষা কি বঞ্চিত থাকবে? বিকাশের জন্য মাতৃভাষা অত্যন্ত জরুরি। মাতৃভাষায় শিশু শিক্ষার বিকল্প তো হতে পারে না।
পৃথিবীর সব ভাষার প্রতি সম্মান এবং সংখ্যালঘু ও দুর্বল সম্প্রদায়ের ভাষা রক্ষায় সব দেশের সরকারদের দায়িত্ব সম্পর্কে সচেতন ও সক্রিয় থাকা উচিত। দেশের ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর ভাষা চর্চা ও বিকাশ নিশ্চিত করার মাধ্যমেই দেশের সব জাতির মাতৃভাষার প্রতি আমাদের সম্মান নিশ্চিত করা সম্ভবপর হবে।
 

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়